Posts

Sleep or die early (Don’t run after him who tries to avoid you..!)

Image
■ Two-thirds of adults in developed nations fail to obtain the nightly eight hours of sleep recommended by the World Health Organisation.

■ An adult sleeping only 6.75 hours a night would be predicted to live only to their early 60s without medical intervention.


■ A 2013 study reported that men who slept too little had a sperm count 29% lower than those who regularly get a full and restful night’s sleep.

■ If you drive a car when you have had less than five hours’ sleep, you are 4.3 times more likely to be involved in a crash. If you drive having had four hours, you are 11.5 times more likely to be involved in an accident.

■ A hot bath aids sleep not because it makes you warm, but because your dilated blood vessels radiate inner heat, and your core body temperature drops. To successfully initiate sleep, your core temperature needs to drop about 1C.

■ The time taken to reach physical exhaustion by athletes who obtain anything less than eight hours of sleep, and especially less than si…

ভালবাসা

-ব্রেকআপ!!! চিৎকার করে উঠল দিয়া!
-মানে?
-মানে বুঝ না?মানে হল তোমার আর আমার রিলেশনের এখানেই শেষ!বাই বাই!
-আচ্ছা|
-আচ্ছা মানে?তুমি কিছু বলবা না?
-আচ্ছা আজকে কি আমরা শোক পালন করব?না মানে যেমন ধর…প্রতিদিন আমরা আইসক্রিম,ঝালমুড়ি,ফুচ-কা খাই..আজকে বরং তা না করে সিগারেট খাই!
-তুমি আমাকে সিগারেট খাওয়াবা!!!
-না মানে…কষ্ট ভুলতে তো মানুষ তা-ই করে!
-তোমার কি মনে হয় আমার কষ্ট লাগবে?মোটেও না!
-ও
রাগে হাতের ব্যাগটা আছাড় মারল দিয়া!
-তুমি একটা ছাগল আর একটা ছাগলের সাথে কোনো মানুষের সম্পর্ক থাকতে পারে না!
কথাটা বলেই বাসার দিকে হাঁটতে লাগল দিয়া|দিয়ার ফেলে যাওয়া ব্যাগটা হাতে নিল আকাশ|ভিতরে একটা মোবাইল আর কিছু টাকা আছে|আকাশ একবার ভাবল দিয়াকে ব্যাগের জন্য ডাক দিবে|কিন্ত পরক্ষণেই চিন্তাটা বাদ দিল|ব্যাগটা হাতে নিয়েই হাঁটা শুরু করল ও|দুটো বাচ্চা মেয়ে রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে দড়িলাফ খেলছিল|ওর হাতে মেয়েদের ব্যাগ দেখে খিলখিল করে হেসে উঠল মেয়ে দুটো|ওদের হাসি দেখে আকাশও হেসে দেয়|তবে এবার আর মেয়ে দুটো হাসে না|হয়ত ওকে পাগল ভাবছে!
-হ্যালো,তুমি আমার মোবাইলসহ ব্যাগ চুরি করলা কেন?
-না,না আমি তা করিনি!তুমি ই তো ব্যাগটা ফে…

রাতের পরী

রাতের পরীরা কিভাবে উড়লো, কিভাবে নিষিদ্ধ গলিতে এলো, কেও ভাবেনা। জৈবিক চাহিদা, নিষ্ঠুর বাস্তবতা কিংবা হায়ানাদের ধারালো দাবানলে ওরা ক্ষত বিক্ষত! ওদের অসহায়ত্ব কেউ দেখেনা। বন্দী পাখির মত ওরা ছটফট করে মরে। আমরা ওদের ডানা ভেঙে, খাঁচায় আঁটকে রাখি।

শুকুনীর দল মাতে উল্লাসে। ওরা পিপাসা মিটাতে ব্যস্ত । ওরা রাতের পরীদের কোলে বীজ বপন করে! জুটা আবর্জনা ডালে, আবার ওরাই ওদের “নষ্ট ” খেতাব দেয়।
চারিদিকে ধর্মের বাতাস। চারিদিকে মানবতার হুংকার। মহান ব্যক্তিদের বিশাল বিশাল বানী। ওদের বল,নেবে কি কোনো রাতের পরী কে তোমার ভালবাসার আঙিনায়??? ওরা মুখ ফিরিয়ে নেবে। আহ! মানব স্বত্বা!!! আমি লজ্জিত এমন একটি সমাজের বাসিন্দা আমি, যেখানে রাতের আঁধারে নষ্ট পল্লীতে যাতায়াত বৈধ, নষ্ট পল্লীর কষ্ট গুলো কে হাত দিয়ে ছুঁয়ে যাওয়া অবৈধ!!!

আমি তাদের কথা বলছিনা, যারা শখের বশে রাতের পরী সাঝে। আমি তাদের কথা বলছি,যারা বাস্তবতার কঠিন উত্তাপের স্বীকার, যারা অনাহাড়ে প্রান বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠে, যাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে, সুশীল সমাজের ভদ্র বেশী শকুন গুলো তাদের কে খুঁবলে খায়, তাদের কে রক্তাক্ত করে নষ্ট পল্লীতে মোহর মেরে, ছুঁড়ে ফেলে আসে।
রাত…

ভালবাসি তোমায়

Image
আজপ্রতিটিক্ষণহৃদয়েযেপরমসত্যঅনুভবকরলাম- আমিশুধুইতোমার।সেশেষঠিকানাআমিপেলাম।কখনইতামিথ্যাহতেদিওনা, কখনইছেড়নাআর।আজআমারভীষণসুখীহাতদু’টো, আরদৃষ্টিঘুরিওনাঐঅদ্ভুতসুন্দরচোখজোড়ার, সেখানেঅপলকতাকিয়েবৃষ্টিরসাথেআমিওআনন্দহয়েঝরেছিলাম! তোমাকেভালবাসিপ্রচণ্ড- এরচেয়েকোনওসত্যআপাততআরজানিনা!! ভালবাসিতোমায়! আজশেষবিকেলেরপাহাড়ছুঁয়েছুটেআসাদমকাহাওয়ারজড়িয়েদেয়ামেঘেরমতোছোট্টএকটিঘটনাআমারসবদ্বিধাকেউড়িয়েনিয়েগেলো! বুঝলাম, মহাকালযেহাস্যকরক্ষুদ্রসময়কে “জীবন” বলেআমাকেদানকরেছে।সেইজীবনেতুমি-ইআমারএকমাত্রমানুষটি, যারপাঁচটিআঙ্গুলেরশরণার্থীআমারপাঁচটি

নিরাপত্তা

বিড়ালের সামনে মাছ রেখে তারপর বলে-এই বিড়াল মাছ কিন্তু খাবি না !!
তার মানে মেয়েরা (__?__) Open করে হাটবে আর ছেলেদের বলবে দেখবি না।
শেয়ালে ভরা জঙ্গলে মুরগি কে ছেড়ে দিয়ে যদি বলে শেয়াল মুরগি না খেয়ে নিজের মানসিকতা বদলাতে !!
সেটা কি আদৌ সম্ভব ?? কখনো সম্ভব না। কারণ শেয়ালকে বানানো হয়েছে মুরগির প্রতি দূর্বলতা দিয়ে। ঠিক মানুষের উত্তেজনা টা কেও বানানো হয়েছে বিপরীত লিঙ্গের বিশেষ কিছু অঙ্গের প্রতি দূর্বতলতা রেখে।
এখন আপনি যদি মানুষের সেই সব বিশেষ অঙ্গ রাস্তায় দেখিয়ে বেড়ান আর বলেন যে আপনার উত্তেজনা জেগে উঠতে পারবে না,নিজের মানসিকতা বদলান।
সেটা কি সম্ভব ??
কখনো না !!
কেনোনা মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছেই এমন ভাবে। আর মানুষের বিশেষ অঙ্গ গুলা দেখলেই উত্তেজনা জেগে উঠবে বলেই তো বলা হয়েছে মানুষ কাপড় পড়তে আর পর্দা
করতে। কিন্তু আপনি সেটা না করে রাস্তায় খোলা মেলা চলবেন আর বলবেন আপনার মানসিকতা বদলান !!
এটা পাগলের প্রলাপ ছাড়া কিছুই না।
জৈনক মানবতাবাদীরা বলে থাকে নারীকে ভোগ্য পণ্য ভাবিয়েন না !! আপনারা মানসিকতা বদলান। মেয়েদের মেয়ে নয়, মানুষ ভাবুন।
এগুলা শুনলে আমার চরম হাসি পাই।আমি বলি নারী…

আমার পিচ্চি পাগলী

আমি চাইনি বলেই কি দাওনি,নাকি আমার হাজার চাওয়ার মানেই বুঝোনি?
আর কয়দিন তারপর আমরা দুজনে ভিন্ন ভিন্ন গ্রহের মানব!!
সময় করে পড়ে নিও কি লেখা ছিল শেষ চিঠিতে!!  সেদিন আর আমি নই অন্যকেউ থাকবে তোমার পাশে।
আমিতো আবেগ দিয়েই শুরু করেছিলাম ভালবাসা দিয়ে শেষ করবো বলে!! নিয়তিও যেন আমার সাথে উপহাস করলো তাইতো আবেগ দিয়েই শেষটা হলো...
ভেবেছিলাম নতুন বছর টা নতুন জীবন দিয়ে শুরু হবে, সেদিন আবারো ভালবাসার কথা হবে নতুন করে কিন্তু এটাতো ভাবিনি তোমার আমার জীবনের সমাপ্তি দিয়েই শুরু হবে তোমার আমার নতুন জীবন...
সব লেখা যখন তোমাকে ঘিরেই শেষ লেখাটা তাহলে সেদিনেই লিখবো...
ভুলে যেওনা চুক্তি অনুসারে "এখনো তুমি আমার পিচ্চি পাগলী "

বিনিময়..

একটা সময় খুব ইচ্ছে ছিল গীটার বাজানো শিখবো, কিন্তু আজও হয়ে ওঠে নি।কত মানুষ বলেছিল আমার গীটারের শব্দের সাথে গান গাইবে,আজ তারা সবাই সুখের গান গায় অন্যকারো সাথে,অন্যকারো সংসারে..😊
ভেবেছিলাম, একটা মানুষ এর সাথেই সারাজীবন থাকবো,সেটাও হয়ে ওঠে নি,সেও হঠাৎ না বলেই হারিয়ে গেছে কিন্তু তাকে কোন দোষ দেওয়াটা ঠিক হবে না,শুধু বলবো নিয়তি আমাদের সাথে খেলেছে বা ভাগ্য আমাদের সাথে ছিল না!!
মাঝেমাঝে কিছু মানুষ আসে,প্রয়োজন শেষ হলে চলেও যায়,ধরে রাখার Try করিনি কোনদিন।
ভেবেছিলাম এবার হয়তো একটা মানুষ আমাকে বুঝবে, তাও হল না!!এই প্রথম কোন একটা মানুষ এর জন্য এতটা কষ্টে ভরে গেছে জীবনটা,হয়তো সেও চলে গেছে অন্যকোন গন্তব্যে বা যাবে!!
হয়তো আমিও ভুলে যাব অনেক কিছুই,অন্যকেউ আসবে আবার হাতটা ধরার জন্য,তারপর সেও চলে যাবে!!
এই হাত দুটি দিয়েই কত মানুষকে তার গন্তব্যে পৌছে দিয়েছি,কিন্তু তার বিনিময় কি নিয়েছি তাদের কাছে আজও আমার জানা নেই!! যদি নিজে ফায়দা লুটতে চাইতাম,তাহলে অনেক সুন্দর মানুষ আমার ভোগের বস্তু হতো।শুধুমাত্র মানুষ বলেই অন্য মানুষগুলোকে ভোগের বস্তুতে রূপান্তর করিনি,কারন revenge কথার সাথে আমি পরিচিত নই বা এই কথার কোন…

ডায়েরীর শেষ পাতাটা রাখা আছে তোর জন্য

কিছু মনে রাখতে হলে ডায়েরীর পাতায় লিখে রাখাটা কতটা জরুরী আজ অবধি জানা হয়নি।ডায়েরী লিখার অভ্যাস নেই বললেই চলে,হাতের লেখা ভালো না বলেই হয়তো লেখা হয়নি এতদিন,আর হাতের লেখা ভালো করার কোন তাড়াও নেই এখন।
তবে এতটুকু বুঝেছি,তোকে , তোর স্মৃতিগুলো,তোর পায়ের প্রতিটা চিহ্ন, তোর ঠোঁটের হাসি মনে রাখার জন্য কোন ডায়েরীর প্রয়োজনীয়তা নেই আমার।
তারপরো আমার স্বপ্নগুলোর বাস্তবিক রূপ দেওয়ার কোন ইচ্ছে নেই।বাস্তবিক রূপ দিতে গেলেই হারানোর সম্ভাবনা থেকেই যায়।আর তোকে হারাতে হবে এটা ভাবতেই খুব কষ্ট হয়!! তুই যদি কোনদিন হারিয়ে যাস,তবে মনে রাখিস সেদিন থেকেই চিরতরে হারয়ে যাবে একটা সাজানো স্বপ্নের বাগান।বাগানে ফুল ছিল একটাই কিন্তু সুবাস ছাড়াতো  হাজারও ফুলের সুগন্ধে।
তাই নিজের ডাইরীতে নিজের কথা নাই লিখলাম,ডাইরীটা রেখে যাব বাকিটা তুই নাহয় লিখে নিস.....!!
সাজিয়ে লিখবি কিন্তু তোর মনের মত করে, আমার না বলা কথাগুলো....😊😊

অবাধ্য মন

অনেক দিন ধরে গড়ে ওঠা স্বপ্নগুলো ভেঙ্গে যাওয়াটা কেউ সহজেই মেনে নিতে চাইবে না,কিন্তু কিছুর করার থাকে না বলেই বাধ্য হয়েই মেনে নিতে হয়!!
"বাধ্য হয়ে মেনে নেওয়া "  কথাটা অনেক সহজ,কিন্তু মেনে নেওয়াটা তেমন  সহজ না। এর জন্য জীবনের অনেক ক্ষতিও হতে পারে। কিন্তু কার কথা কে ভাবে?আমিতো ভালই আছি,বাকিরা কি করছে আমি ভাববো কেন?
আমি বলছি না, আমি ভাল মানুষ, এটাও প্রমান করতে চাইছি না "আমি সবার থেকেই আলাদা"।
এখন বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে কিছু কথা বলি,একটা নেশাগ্রস্থ মানুষ তার স্বপ্নগুলোকে আঁকড়ে ধরে বাঁচতে চায়,নেশাটা ছেড়ে একটা ভাল জীবনের স্বপ্ন দেখে,সেই মানুষটার যদি স্বপ্নগুলো ভেঙ্গে  যায় বা কেউ ভেঙ্গে দেয় তাহলে তার মনের অবস্থা কি হতে পারে,কতটা নিচে নামতে পারে এই মানুষটা? এটাতো আমার  ভাবার প্রয়োজন নেই,কারন আমিতো ভালই আছি!
একটা মানুষ কি আমার কাছে,সেটা না জেনেই তার সাথে মেশার প্রয়োজনীয়তা কতটুকু? আমি ভাল আছি ভেবেই কি প্রয়োজনীয়তা খোঁজা হয়  না থাহলে? আমি বারবার প্রশ্নগুলোর উত্তর অন্যদের দিকে দিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি,কারন আমি জানি উত্তর গুলো আমার বিপরীতে চলে যাবে তাই।
নিজেকে সৎ,ভাল প্রমান করতে চাইল…

ব্যবধান

একা একা বসে যখন রাতগুলো কাটতে চায় না নীরবের তখন কেমন জানি একটা যন্ত্রণা অনুভব হতো তার কিন্তু যখন তার মনে হতো কেউ একজন তার জন্য অপেক্ষায় আছে তখন একটা অফুরন্ত ভালোলাগা কাজ করতো নীরবের।
আজ অনেকটা দিন পার হয়ে গেছে কিন্তু দুজনের কোন দেখা নেই,কথা নেই তারপরো দুজন দুজনকে যেন আগের চেয়ে দ্বিগুণ ভালবাসে।কিন্তু তারা জানে না আবেগী ভালবাসার মূল্য এই সমাজ দিতে রাজি নয়।
একটা সময়ে প্রতিমা হাসতো, খেলতো আর পাখি হয়ে উড়তে চাইতো আকাশে। নীরব সেই পাখির ডানা হয়ে থাকার কতই না চেষ্টা করতো।
এইতো কিছুদিন আগের কথা,প্রতিমা খোলা মাঠে যখন একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটাছুটি করতো নীরব তখন ভালাসার মাঝে তার ভালোলাগা গুলো খুঁজতে থাকতো।অজান্তে ভালবাসর মাঝেও আর বেশি ভালবাসতো প্রতিমাকে। কিন্তু এখন আর তাদের সময় হয় না,পাশাপাশি থেকে ভালবাসার।কতকিছুই আজ বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের মাঝে,নিয়তি লেখকে যেন আজ বড়ই পাষণ্ড মনে হয় আর সময়কে যেন মনে হয় বাঁধার স্তম্ভ। কিন্তু নীরবের সাথে প্রতিমার ব্যবধান এতটুকুই...
প্রতিমা শহরের অট্টালিকায় জন্মানো ধনীর আদরের দুলালী,
আর নীরব কৃষকের কুঠিরে জন্মানো এক কৃষক পুত্র।
একটা সময় ছিল, পাখিদের মত দিন শেষে সন…

শুধু গল্প না,বাস্তবতার মুখ দেখুক প্রিয়তিরা....

তুমিনিজেরপ্রতিএতোউদাসীনকেন?
কেনএভাবেনিজকেনিঃশেষকরেদিচ্ছো!? জীবনেরপ্রতিতোমারএতোঅনীহাকেন? --এসবপ্রশ্নেরউত্তরদেয়ারপূর্বেতোমাকেএকটাপ্রশ্নকরি! বলতে